fbpx
“ডোমেইন এবং হোস্টিং কি ? সাধারণত কিভাবে এরা কাজ করে থাকে? এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। চলুন জেনে নেওয়া যাক-

আমাকে অনেকেই প্রশ্ন করেন ডোমেইন(Domain) এবং হোস্টিং(Hosting) কি ? যারা এধরনের প্রশ্ন করেন তাদের জন্য এই পোস্ট। এখানে তুলে ধরা হয়েছে- ডোমেইনর(Domain) কি? হোস্টিং(Hosting) কি? এগুলো কি কাজে ব্যবহার হয় এবং কোথায় পাওয়া যায়।

১. ডোমেইন (Domain) কি ?

ডোমেইন (Domain) একটি ইংরেজি শব্দ এর বাংলা অর্থ হলো স্থান বা ঠিকানা যা ইন্টারনেট জগতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। মূলত, ডোমেইন নাম বলতে সাধারনভাবে কোন একটা ওয়েবসাইটের নামকে বোঝায়। প্রত্যেক ওয়েবসাইটের একটি নির্দিষ্ট আইপি অ্যাড্রেস (IP Address) থাকে। যেমনঃ 66.220.159.255. সাধারণত আইপি অ্যাড্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট মনে রাখা কষ্টসাধ্য। তাই মনে রাখার সুবিধার জন্য আইপি অ্যাড্রেসের পরিবর্তে ডোমেইন নাম ব্যবহার করা হয়। এছাড়া এক বা একাধিক কম্পিউটার কে ইন্টারনেট এ চেনার জন্যও ডোমেইন নাম ব্যবহার করা হয়।

ওয়েরসাইট তৈরী করতে হলে আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের একটি নাম দিতে হবে। যেমন আমরা ফেইসবুক কে খুজে পাই www.facebook.com দিয়ে। গুগল কে অমারা খুজেপাই www.google.com দিয়ে। যে নাম দিয়ে আপনার ওয়েবসাইট একজন লোক ভিজিট করবে সেটাই হলো আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন । ডোমেইন শুধুমাত্র .com দিয়েই হবে সেরকম নয়, বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইটে বিভিন্ন ধরনের ডোমেইন লোকজন ব্যবহার করে। ব্যবসা বা সাধারন ব্যবহারের জন্য সবাই example.com ই ব্যবহার করে। তবে বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইটের জন্য লোকজন বিভিন্ন ডোমেইন এক্সটেনশন ব্যবহার করে যেমন: অরগানাইজেশনের জন্য example.org, নেটওয়ার্কিং সাইটের জন্য .net যেমন example.net, ইনফরমেশন সাইটের জন্য example.info ইত্যাদিসহ আরও অনেক ধরনের ডোমেইন ব্যবহার করা হয়।

উপরে যে ডোমেইনের কথা বলা হলো সেটা প্রিমিয়াম ডোমেইন। এগুলো আপনার ওয়েবসাইটে ব্যবহার করতে হলে আপনাকে টাকা দিয়ে কিনতে হবে। সাধারনত এধরনের ডোমেইনের মূল্য ৯০০-২০০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে এক বছরের জন্য।

যেভাবে ডোমেইন কাজ করে থাকে

সাধারনত আপনি যখন কোন ব্রাউজারের অ্যাড্রেসবারে যে কোন ওয়েবসাইট অ্যাড্রেস লিখে থাকেন, তখন নিম্নলিখিত ধাপগুলোর মাধ্যমে ডোমেইন কাজ করে থাকেঃ-

উদাহরণস্বরূপঃ– আপনি যখন https://arasel.net ওয়েবসাইটটি তে প্রবেশ করবেন, তখন নিচের কাজ গুলো সম্পাদিত হবে।

প্রথমত, ব্রাউজার আইপি অ্যাড্রেস (IP Address) অনুসন্ধান করে ।
তারপর SG নেমসার্ভারে রিকোয়েস্ট পাঠানো হয়,
পরবর্তীতে, SG রিকোয়েস্টটি গ্রহণ করে লোকাল সার্ভার হতে প্রাইমারি সার্ভার এর সাথে যোগাযোগ করে,
প্রাইমারি নেমসার্ভার যেটা আপনার হোস্টিং এর সাথে লিংক করা আছে: https://arasel.net এর আইপি অ্যাড্রেস লোকাল নেম সার্ভারে পাঠানো হয়।
ফাইনালি, সেই https://arasel.net সাইটটি ব্রাউজারে প্রদর্শিত হয় ।

২. হোস্টিং(Hosting) কি ?

অনেকেই ডোমেইন কি তা জানেন কিন্তু হোস্টিং কি তা জানেন না। আপনি একটি ডোমেইন কিনলেন তাহলে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের একটি নাম কিনলেন।

মূলত, আপনার ওয়েবসাইটের Content, Images, Videos, এবং বিভিন্ন File সার্বক্ষণিক তথা দিনে ২৪ ঘন্টা এবং বছরে ৩৬৫ দিন চালু রাখার জন্য একটি স্পেস বা জায়গা প্রয়োজন। আপনার ওয়েবসাইট কে এমন একটা পিসি তে রাখতে হবে যেটা ২৪ ঘন্টা এবং বছরে ৩৬৫ দিন অন থাকবে। সবসময় চালু থাকে, এমন একটা পিসিতে আপনার ওয়েবসাইট রাখার সুবিধা দিয়ে থাকে হোস্টিং কোম্পানীগুলো।হোস্টিং কোম্পানীগুলো মাসিক বা বাৎসরিক টাকার বিনিময়ে এ সার্ভিস দিয়ে থাকে। বিভিন্ন কোম্পানী বিভিন্ন ধরনের মূল্যে হোস্টিং প্রভাইড করে। বাংলাদেশে আপনাকে হোস্টিং নিতে হলে বিভিন্ন কোম্পানীকে বিভিন্ন ধরনের মূল্য পরিশোধ করতে হবে।

তাদের পিসি থেকে নিদিষ্ট পরিমান জায়গা আপনাকে কিনে ব্যবহার করতে হবে। আর আপনি আপনার ওয়েবসাইটের জন্য যে জায়গাটা কিনবেন সেইটা হলো হোস্টিং। আপনি চাইলে আপনার বাসার পিসিতেও আপনার ওয়েবসাইট রাখতে পারেন কিন্তু আপনার বাসার পিসি কি ২৪ ঘন্টা ৩৬৫ দিন চালু থাকে? আপনি আপনার পিসিতে ওয়েবসাইট রাখলে আপনার কম্পিউটার বন্ধ বা ইন্টারনেট সংযোগ না থাকলে আপনার ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইট দেখতে পারবে না। আপনি যে পিসিতে আপনার ওয়েবসাইট হোস্ট করবেন সেটা সবসময় চালু থকতে হবে। আপনার সাইট হোস্ট করা পিসি চালু থাকলেই আপনার ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইট দেখতে পারবে।

বাংলাদেশের হোস্টিং কোম্পানী সহ বিশ্বের যে সকল হোস্টিং কোম্পানী আছে, তারা বিভিন্ন ধরনের হোস্টিং বিক্রি করে। যেমন: শেয়ার হোস্টিং, ভিপিএস, ডেডিকেটেড সার্ভার ইত্যাদি। আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী আপনাকে হোস্টিং স্পেস কিনতে হবে।

যারা জানে না তারা অনেকেই মনে করেন ডোমেইন হোস্টিং মনে হয় একই জিনিস । অথবা একটা কিনলে ২ টাই পাওয়া য়ায়। না মুলত ডোমেইন এক জিনিস আর হোস্টিং আরেক জিনিস। ২ টাই আপনাকে কিনতে হবে আলাদা আলাদা টাকা দিয়ে। তবে সাধারনত যারা হোস্টিং বিক্রি করে তারা ডোমেইন ও বিক্রি করে। আপনি চাইলে একই প্রভাইডারের কাছ থেকে ২ টাই কিনতে পারেন। আবার চাইলে আলাদা কোম্পানীর কাছ থেকেও কিনতে পারেন। তবে আমি বলবো আপনি ডোমেইন এবং হোস্টিং একই কোম্পানীর কাছ থেকে কিনেন তাতে আপনার মেইনটেনেন্সে সুবিধা হবে।

আপনি আমাদের কাছ থেকে ডোমেইন এবং হোস্টিং ক্রয় করতে পারেন। আমরা বাংলাদেশের ডোমেইন হোস্টিং প্রভাইডার। আমরা বাংলাদেশে সার্ভিস প্রভাইড করি এবং বাংলাদেশের বাইরের দেশেও হোস্টিং প্রভাইড করি। কিন্তু আমাদের হোস্টিং সার্ভার হলো ইউ.এস.এ, এর । তাই আমাদের সার্ভির খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

যেভাবে হোস্টিং কাজ করে থাকে

যখন কেউ আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইনটি ব্রাউজারে লিখে ইন্টারনেটে সার্চ করবে তখন ডোমেইন নামটি IP Address এ রূপান্তরিত হয়ে ওয়েব হোস্টিং কোম্পানির কম্পিউটারে নিয়ে যাবে মূলত যেখানে আপনার ওয়েবসাইটের Content, Images, Videos, এবং বিভিন্ন ফাইলগুলো জমা করে রাখা হয়েছে। সেখান থেকে জমা করা ফাইলগুলো তৎক্ষণিক ভাবে ভিজিটর বা ইউজারের ব্রাউজারে পাঠানো হয়। তারপর ইউজার সেই ওয়েবসাইট টি দেখতে পান। এভাবেই মুলত ওয়েব হোস্টিং কাজ করে থাকে।

27 Comments

  1. Thank you for your sharing. I am worried that I lack creative ideas. It is your article that makes me full of hope. Thank you. But, I have a question, can you help me?

  2. The point of view of your article has taught me a lot, and I already know how to improve the paper on gate.oi, thank you.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *